কেন হয় যমজ সন্তান

0
37

এটা সকলেরই জানা যে, স্ত্রী দেহের ডিম্বাণু ও পুরুষের শুক্রাণুর মিলনে তৈরি হয় ভ্রূণ। প্রতি ঋতুচক্রে নারী শরীরে একটি ডিম্বাণু উত্পন্ন হয়। কিন্তু কখনও কখনও দু‍টি ডিম্বাণুও উত্পন্ন হতে পারে। প্রায় একই সময়ে উত্পন্ন হওয়া দুটি ডিম্বাণু থেকে যমজ সন্তানের উত্পত্তি হয়ে থাকে। না, শুধু এটাই কারণ নয়, একটি ডিম্বাণু ভেঙে দুটি হয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রেও যমজ সন্তানের জন্ম হতে পারে। এ ব্যাপারে ঠিক কী হয় তা জানিয়েছেন, চিকিত্সক অরুণকুমার মিত্র তাঁর ‘কন্যা, জায়া ও জননী’ গ্রন্থে। তিনি লিখেছেন যমজের বিভিন্নতা সম্পর্কে-

*ভিন্নধর্মী যমজ: সাধারণ দুটি ঊর্বর ডিম্বাণু থেকে এই ধরনের যমজের উত্পত্তি। এদের আকৃতি ভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে। গায়ের রং, চোখ বা চুলের রং-ও আলাদা হয়। তবে উভয়ের রক্ত ভিন্নধর্মী নাও হতে পারে। এই দুটি ভিন্ন ভ্রূণঝিল্লিতে অবস্থান করে এবং স্বতন্ত্র ফুল থেকে পুষ্টির সরবরাহ পায়। সাধারণত এসব যমজের একটি হয় ছেলে এবং একটি হয় মেয়ে। যে সব দম্পতি নিজেরা যমজ, তাদের এরকম যমজ সন্তান লাভের যোগ বেশি।

*অভিন্নধর্মী যমজ: এরূপ যমজ সন্তানের উত্পত্তি একটি ডিম্বাণু থেকে। এই ডিম্বাণু স্বাভাবিক ঊর্বরতা লাভের পর দুটি সমান ভাগে বিভক্ত হয়ে দুটি ভ্রুণের সৃষ্টি করে। এটি একটি ভ্রূ‌ণ-ঝিল্লির মধ্যে দু’ভাগে অবস্থিত থাকে এবং দুটি ভ্রুণ একটি ফুল থেকেই অক্সিজেন ও অন্যান্য পুষ্টি গ্রহণ করে। তা সত্ত্বেও অনেক সময় একটি ভ্রূণ অপেক্ষা অন্যটি বেশি বেড়ে যেতে পারে। এ ধরনের যমজ সন্তান দেখতে একই রকম হয় আর দুটি-ই ছেলে বা দুটিই মেয়ে হতে পারে। অনেক সময় এদেরও দেহের গঠন, মুখাবয়ব, চুল বা চোখের রং হয় একই রকম। রক্তের গ্রুপ হয় সম-চরিত্রের, একজনের চামড়া কেটে অন্যের গায়ে লাগালে তা নিজের চামড়ার মতোই আচরণ করে। বুড়ো আঙুলের ছাপে কিন্তু পার্থক্য থাকে। কখনও কখনও ডিম্বাণুটি অসম্পূর্ণভাবে বিভক্ত হলে সংযুক্ত-দেহবিশিষ্ট যুক্ত যমজ বা সায়ামিজ টুইন-এর সৃষ্টি হয়।

LEAVE A REPLY