গর্ভাবস্থায় কোমর ব্যথা?

0
59
টার্ম মুছে ফেলুন: যোগব্যায়াম যোগব্যায়ামটার্ম মুছে ফেলুন: মেডিটেশন ব্যথা মেডিটেশন ব্যথাটার্ম মুছে ফেলুন: গরম ও ঠান্ডা পানির সেঁক গরম ও ঠান্ডা পানির সেঁকটার্ম মুছে ফেলুন: গর্ভাবস্থায় হাঁটাহাঁটি গর্ভাবস্থায় হাঁটাহাঁটিটার্ম মুছে ফেলুন: কোমর ব্যথা কোমর ব্যথাটার্ম মুছে ফেলুন: হাঁটা হাঁটাটার্ম মুছে ফেলুন: চলাচল করতে কষ্ট চলাচল করতে কষ্টটার্ম মুছে ফেলুন: রাতে ঘুম আসে না রাতে ঘুম আসে নাটার্ম মুছে ফেলুন: অনেকে সারা রাত পিঠে বালিশ অনেকে সারা রাত পিঠে বালিশ
গর্ভাবস্থায় কোমর ব্যথা?
অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায়, বিশেষ করে শেষের দিকে কোমর ব্যথা মেয়েদের একটি বড় কষ্টের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। কোমর ব্যথার কারণে হাঁটা, চলাচল করতে কষ্ট, রাতে ঘুম আসে না, অনেকে সারা রাত পিঠে বালিশ দিয়ে বসে কাটান।

কোমর ব্যথা কেন হয়?

গর্ভাবস্থায় শরীরের ওজন বাড়ে, ভারী হয়। তাই পেশি ও সন্ধির ওপর চাপ বাড়ে।
প্রসবের কিছুদিন আগে থেকে স্বাভাবিক প্রসবের প্রস্তুতিস্বরূপ রিলাক্সিন হরমোনের প্রভাবে কোমরের স্যাক্রোআইলিয়াক জয়েন্টের লিগামেন্টগুলো শিথিল হয়, ফলে ভার বহনক্ষমতা কমে যায়। ব্যথা বাড়ে।

জরায়ু বড় হওয়ার কারণে মায়ের শরীরের ভরকেন্দ্র পরিবর্তিত হয়, পিঠের ওপর অতিরিক্ত চাপ পড়ে। কোমর ব্যথার এটিও একটি কারণ।
মাতৃত্বকালীন স্ট্রেসও কোমর ব্যথার কারণ হিসেবে কাজ করে।

কী করে আরাম পাবেন?

1.সবচেয়ে কার্যকর পদ্ধতি হলো ব্যায়াম। নিয়মিত ব্যায়াম কোমরের পেশি ও সন্ধির কার্যক্ষমতা বাড়াবে, ব্যথা কমাবে। গর্ভাবস্থায় হাঁটাহাঁটি ও সাঁতার হলো সবচেয়ে ভালো ব্যায়াম।
2.হাইহিল ও একেবারে ফ্ল্যাট জুতো—দুটোই শরীরের ওজনের ভারসাম্য নষ্ট করে। হালকা উঁচু নরম সোলের জুতো ব্যবহার করতে হবে।
3.চিত হয়ে না শুয়ে বাঁ কাত হয়ে শুতে চেষ্টা করুন। দুই পায়ের মাঝখানে এবং পিঠের নিচে বালিশ দিয়ে ঘুমালে মেরুদণ্ডের চাপ কমবে।
4.গরম ও ঠান্ডা পানির সেঁক নিতে পারেন। তবে পানির তাপমাত্রা যেন সহনীয় থাকে।
5.নিচু হয়ে ঝুঁকে কোনো কাজ করা যাবে না। সোজা দাঁড়িয়ে বা বসে কাজ করুন। ভারী কিছু ওঠাবেন না।
6.যোগব্যায়াম, মেডিটেশন ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। পিঠে ও কোমরে হালকা ম্যাসাজও করা যেতে পারে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা                                                                              দৈনিক প্রথম আলো, ০৮ অগাস্ট ২০১৮

LEAVE A REPLY